বিশ্ব কিডনি দিবস আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক :

বর্তমান বিশ্বে অসংক্রামক ব্যাধিগুলোর মধ্যে কিডনি রোগ অন্যতম। বাংলাদেশে দিন দিন কিডনি রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে প্রায় ২ কোটি লোক কোনো না কোনো কিডনি রোগে ভুগছে। বিশ্ব কিডনি দিবস আজ।

বিশ্ব কিডনি দিবসে এবারের প্রতিপাদ্য হলো- ‘স্থূলতা কিডনি রোগ বাড়ায়, সুষ্ঠু জীবনযাপনে সুস্থ কিডনি।’ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) সংজ্ঞা অনুযায়ী বডি মাস ইনডেক্স (বিএমআই) যদি ২৫ থেকে ২৯.৯ হয়, তবে তাকে অত্যধিক ওজন, আর ৩০ এর অধিক হয় তাহলে স্থূলতা বলে।

গবেষণায় দেখা গেছে, স্থূলতা ও কিডনি রোগের মধ্যে নিবিড় সম্পর্ক বিদ্যমান। স্বাস্থ্যকর জীবন প্রণালি অনুসরণ করে স্থূলতা প্রতিরোধ করা যায়। স্থূলতা হ্রাস পেলে কিডনি রোগও হ্রাস পাবে।

দিবসটি উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ  বলেন, ‘স্থূলতা আজ বিশ্বব্যাপী একটি স্বাস্থ্য সমস্যা। কিডনি রোগের প্রকোপ বৃদ্ধিতে স্থূলতা অনুঘটক হিসেবে কাজ করে। স্বাস্থ্যসম্মত জীবন পদ্ধতি অনুসরণ করে কিডনি রোগ প্রতিরোধ করা যায়।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘কিডনি বিকল রোগীদের জন্য অত্যন্ত কম খরচে ডায়ালাইসিস সেবা প্রদানের লক্ষ্যে আমরা পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি) প্রকল্পের মাধ্যমে সীমিত আকারে আন্তর্জাতিক মানের ডায়ালাইসিস সেবা কেন্দ্র চালু করেছি।’

তিনি বলেন, ‘সারা বিশ্বে কিডনি রোগের প্রকোপ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু এ রোগের চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল এবং এ রোগে মৃত্যুর হার অপেক্ষাকৃত বেশি। কাজেই এই সকল রোগের মূল কারণ অনুসন্ধান এবং প্রতিরোধের উপায় বের করা জরুরি।’

দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে আজ বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশন, কিডনি ফাউন্ডেশন ও ক্যাম্পস যৌথভাবে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে র‌্যালি ও আলোচনা সভা, বিভিন্ন স্কুল ও স্থানে কিডনি স্ক্রিনিং এবং সচেতনতামূলক কর্মসূচি। বেলা ১১টায় আইডিইবি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

বাংলাদেশ রেনাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম জানান, কিডনি রোগ মূলত দুই ধরনের । আকস্মিক কিডনি রোগ এবং ধীরগতির কিডনি রোগ। ধীরগতির কিডনি রোগের তিনটি প্রধান কারণ হচ্ছে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও নেফ্রাইটিস। প্রতিবছর ৪০ হাজার রোগী নতুন করে ধীরগতির কিডনি রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এসব রোগীদের কিডনি কয়েক বছরের মধ্যে সম্পূর্ণ বিকল হয়ে যায় তখন ডায়ালাইসিস বা কিডনি সংযোজন ব্যতীত বাঁচার উপায় থাকে না।

উল্লেখ্য, ২০০৬ সাল থেকে প্রতিবছর মার্চ মাসের দ্বিতীয় বৃহস্পতিবার বিশ্ব কিডনি দিবস পালিত হচ্ছে। ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি অব নেফ্রোলজি এবং ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব কিডনি ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে সারা বিশ্বে এই দিবসটি পালিত হয়ে আসছে।

0 Comments

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password

Register