পানিবণ্টনে সম্পর্কের ভবিষ্যৎ নিহিত : হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনে করেন, ভারতের প্রতিশ্রুত তিস্তা পানিবণ্টন চুক্তি বাস্তবায়ন হলে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক আরও একটি পর্যায় অতিক্রম করবে। দুই দেশের সম্পর্ক আরও মজবুত করার জন্য যৌথ পানিসম্পদকে কাজে লাগানোর ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, সব অভিন্ন নদীর পানিবণ্টনে অববাহিকাভিত্তিক একটি বিস্তৃত পরিকল্পনার মধ্যেই আমাদের যৌথ ভবিষ্যত নিহিত।”

ভারতে চারদিনের রাষ্ট্রীয় সফরের শেষ দিন সোমবার সকালে নয়া দিল্লিতে ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

এবারে শেখ হাসিনার ভারত সফরকে ঘিরে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে জনগণের বড় প্রত্যাশা থাকলেও ছয় বছর ধরে ঝুলে থাকা ওই চুক্তি এবারেও হয়নি।

দুই দেশের সম্পর্কের জন্য তিস্তা চুক্তি যে গুরুত্বপূর্ণ, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও স্বয়ং তা স্বীকার করলেও নিজ রাজ্যের স্বার্থের অজুহাত তুলে এবারও এই চুক্তির বিরোধিতায় অনড় ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তবে শনিবার হাসিনার সঙ্গে শীর্ষ বৈঠকের পর দুই দেশের বর্তমান সরকারের আমলেই তিস্তার পানিবণ্টন সমস্যার সমাধানে পৌঁছনো যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন নরেন্দ্র মোদি।

মোদির বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যত দ্রুত সম্ভব তিস্তার সমাধান করতে তার সরকারের আন্তরিক আগ্রহের কথা পুনর্ব্যক্ত করেছেন। আর তা বাস্তবায়ন হলে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক আরও একটি রূপান্তরের মাধ্যমে নতুন পর্যায়ে পৌঁছাবে।”

শেখ হাসিনাকে ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ভারতের সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী এল কে আদভানিও উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email
 

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

%d bloggers like this: