নড়াইলে আশংকাজনক হারে বাড়ছে খুন, ছিনতাই, ধর্ষনসহ সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতনের মতো ঘটনা, পরিত্রাণ পেতে পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলামের হস্তক্ষেপ কামনা

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি: গত বৃহস্পতিবার নড়াইল সদর উপজেলার বনগ্রামে সাবেক মুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কালিপদ বিশ্বাসের বাড়িসহ কয়েকটি বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। পাওনা টাকা আদায়ের ওজুহাতে মুলিয়া ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ অধিকারীর ছেলে শেখর অধিকারীর নেতৃত্বে শহর থেকে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের নিয়ে মুলিয়ার সাবেক চেয়ারম্যান কালিপদ বিশ্বাস (৮০) এর বাড়িসহ কয়েকটি বাড়িতে এ হামলা করে। হামলায় সন্ত্রাসীরা নারীদের শীলতাহানী করে চাঁদা দাবি ও ভয়ভিতি প্রদর্শন করে নির্যাতন চালায়। পরদিন সকালে এ হামলার স্বীকার বনগ্রামের শতাধিক নারী পুরুষ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোসের নিকট অভিযোগ করতে আসেন। এ সময় ভুক্তভোগীরা জানান, নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ অধিকারীর ছেলে শেখর অধিকারীর নেতৃত্বে এ হামলা হয়েছে। এ সময় অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস সকলের অভিযোগ শুনেন এবং ভুক্তভোগীদের নড়াইল সদর থানায় মামলা করার পরামর্শ দেন।
এঘটনায় গত শুক্রবার বিকালে নড়াইল সদর থানায় শীলতাহানী, চাঁদাবাজি ও ভয়ভিতি প্রদর্শন উলেখ করে ১৪৩, ৪৪৭, ৪৪৮, ৩২৩, ৩৫৪, ৩৮৫, ৩৭৯ ও ৫০৬ ধারায় একটি মামলা হয়েছে। মামলা নং-২৭, তারিখ- ২৪/০৬/২০১৬। এ মামলার আসামীর হলো, মুলিয়া ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ অধিকারীর ছেলে শেখর অধিকারী (৩০), সাতঘরিয়া গ্রামের নিখিল মহন্তের ছেলে নিতিষ মহন্ত (৩০), ক্রোড়গ্রামের নিত্য বিশ্বাসের ছেলে তারক (২৮), মুলিয়া গ্রামের অনাথের ছেলে বঙ্গ (২৮) এবং নড়াইল গ্রামের মিজানুরের ছেলে রকিব (২৮), সাদেকের ছেলে সবুজ (২৯)। এলাকাবাসি ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে পাওনা টাকা আদায়ের রাতে ওজুহাতে মুলিয়া ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ অধিকারীর ছেলে শেখর অধিকারীর নেতৃত্বে শহর থেকে ভাড়াটিয়া সন্ত্রসীদের দিয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এদিকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সদর থানার এস,আই ভবতোষ রায় ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে ৩ জনকে আটক করা হয়। নড়াইল পৌরসভার কাউন্সিলর তুফানকে ছেড়ে দেয়া হয়। অপর দুইজন সবুজ ও রুবেল আটক রয়েছে। অপরদিকে নড়াইলে পূর্ব শত্রুতার জেরে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাকারীকে জনতার সহায়তায় পুলিশ আটক করেছে। শুক্রবার বিকাল ৬টায় কালিয়া ডাকবাংলোর সামনে সীতারামপুর গ্রামের ফরিদ শেখ (৪০) কে বেনদারচর গ্রামের সালাম শেখ (৪৫) প্রকাশ্যে ধারাল অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। এদিকে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ গণি মিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শুক্রবার বিকাল ৬টায় কালিয়া ডাকবাংলোর সামনে সীতারামপুর গ্রামের আনছার আলি শেখের পুত্র ফরিদ শেখ কে পূর্বশত্রুতার জেরে বেনদারচর গ্রামের মৃত হাসেম শেখের ছেলে সালাম শেখ প্রকাশ্যে ধারাল অস্ত্রদিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। জনতার সহায়তায় পুলিশ ধারাল অস্ত্রসহ হত্যারীকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় থানায় একটি হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে। নড়াইলের নোয়াগ্রামে স্কুল ছাত্রী মেঘলার মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার) সকালে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। মেঘলা নোয়াগ্রামের নজরুল মোল্যার মেয়ে। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকেলে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী মেঘলা বাড়ির পাশে ঘুরতে যায়। পরে বাড়ি ফিরে না আসায় বিভিন্ন স্থানে অনেক খোঁজ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। প্রতিবেশিরা শনিবার সকালে বাড়ির পাশের একটি জমিতে মেঘলার মৃতদেহ দেখতে পান। পরে দুপুরে তার লাশ উদ্ধার করে নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মেঘলার ভাই ইয়ামিন জানান, তার (মেঘলা) শরীরে আঘাতে চিহৃ রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে তাকে ধর্ষণ করে হত্যা করা হয়েছে। নড়াইলে এক ব্যক্তির উপর সন্ত্রাসী বাহিনী হামলা চালিয়ে ৮০হাজার টাকা ছিনতাই করেছে। ছিনতাইকালে মারাত্মক আহত ইব্রাহিম খান (৪০)কে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। সে নালিয়া গ্রামের ওলিয়ার রহমান খানের পুত্র। এ ঘটনায় লোহাগড়া থানায় ১৫জনকে আসামী একটি মামলা হয়েছে। এলাকা ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, নড়াইলের নলদী ইউনিয়নের নালিয়া গ্রামের ইব্রাহিম খান পার্শ্ববর্তী সুজাপুর গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ মিজানুর রহমানের বাড়ি হতে ধান বিক্রি করে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হয়। পথিমধ্যে নালিয়া ঈদগাহের উত্তর পার্শ্বে কাঁচা রাস্তার উপর ওৎপেতে থাকা নালিয়া গ্রামের চিহ্নিত সন্ত্রাসী ইবাদত খানের ছেলে শওকত খানের (৪০) নেতৃতে ইব্রাহিম খানের উপর ধারালো অস্ত্রদিয়ে দিয়ে হামলা চালায়। এ হামলা ও ছিনতাইয়ে আরো ১৪জন সন্ত্রাসীরা ধারালো অস্ত্র, লাঠিসোটা নিয়ে ইব্রাহিমকে ঘিরে ফেলে কুপিয়ে পিঠিয়ে রক্তাক্ত জখম করে তার কাছে  থাকা ৮০হাজার ৫শত টাকা  ছিনিয়ে নেয়। গুরুতর আহত অবস্থায় ইব্রাহিমকে স্থানীয় ও স্বজনেরা উদ্ধার করে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। মামলার অন্যান্য আসামীরা হলো, সামেদ খানের পুত্র ইমদাদুল খান (৩২), আকুব্বার খানের পুত্র হাফিজার খান (৫০), লিয়া খান ( ৪৫), শাহ খান (৩৫), কালা খান (৩০), কামরুল খান (২৮) , রফিকুল কান (৩৫), রকিব খান (৩০), জুয়েল কান (৩০), মফি খান (৪০), আজাদ মোল্যা(৪০) বদিন খান (৪০), ওয়াজেদ খান (৫৫), শামছু খান (৫৫)। গত সোমবার আনুমানিক বেলা ১১টায় গ্রাম্য দলাদলী ও পূর্বশত্রুতার জের ধরে নালিয়া ঈদগাহের উত্তর পার্শ্বে কাঁচা রাস্তার উপর এলাকার কতিপয় চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা এ ঘটনা ঘটায়। মামলা নং- ২৮৩, তারিখ- ২২/০৬/২০১৬। এছাড়া নড়াইল মাইজপাড়া সড়কে ইজিবাইক ছিনতাই প্রচেষ্টা ব্যর্থ। চালক নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ছিনতাই প্রচেষ্টার ঘটনাটি ঘটে।  উলেখ্য, চয়ন ইজিবাইকটি ঘোড়াখালি মোড় থেকে শাহাবাদের উদ্দেশ্য যাত্রী হিসেবে দুইযুবক রওনা হয়।  এক পর্যায় শাহাবাদ হাজির বটতলার একটু দুরে পৌঁছালে ইজিবাইক চালক চয়ন বিশ্বাস (২৫) কে ধারালো অস্ত্র মুখে ধরে জিম্মি করে পাশের মাঠে নিয়ে নির্যাতন চালায়। এক পর্যায় তার ডাক চিৎকারে মাঠ ও আস-পাশের লোকজন এসে পড়ায় তারা চয়নকে রক্তা ফুলা জখম অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা চয়নকে উদ্ধার করে তার পরিবারের নিকট পৌঁছায় দেয়। চয়ন বিশ্বাস নড়াইল পৌরসভার দূর্গাপুর গ্রামের অজিত বিশ্বাসের ছেলে। শুক্রবার চয়নের পিতা বাদি হয়ে নড়াইল সদর থানায় একটি ছিনতায় মামলা করেছে। মামলায় আসামীরা হলো নড়াইল পৌর এলাকার ডুমুরতলা গ্রামের মো: এখলাচ শেখের পুত্র তরিকুল ইসলাম (২২) এবং একই গ্রামের ইমরান সিকদারের পুত্র তাজু (২১) সহ অজ্ঞাত। নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুভাষ বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় একটি এজহার দাখির হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। অপরদিকে নড়াইলে রিপন বিশ্বাস নামের এক যুবকের লাশ ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার। হত্যা না আত্ম হত্যা ? শুক্রবার সকালে নড়াইল সদর উপজেলার মিরাপাড়া গ্রামে রিপন বিশ্বাসের নিজ বাড়িতে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে প্রতিবেশিরা। স্থানীয়রা জানায়, নিজ বাড়িতে ঘরের ভেতর রিপন বিশ্বাস (২২) এর লাশ উদ্ধার করে। এদিকে এলাকাবাসির ধারনা রিপনকে কৌশলে হত্যা করে গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলিয়ে আত্যাহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। একই একালাবাসি রিপনের মৃত্যুর প্রকৃত ঘটনা উদঘটনের দাবি করেন। নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুভাষ বিশ্বাস ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, মৃত্যু রিপনের দেহের হাটু, মাধার পেছনে রক্তা ফুলা জথম চিহ্ন বিদ্যমান। ময়না তদন্ত শেষে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় নড়াইল সদর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
 

0 Comments

Leave a Reply

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

%d bloggers like this: