breaking news New

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) আচরণে ‘পক্ষপাতিত্ব ও অভদ্রতার’ অভিযোগ তুলে বেঠক থেকে বেরিয়ে গেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) আচরণে ‘পক্ষপাতিত্ব ও অভদ্রতার’ অভিযোগ তুলে বেঠক থেকে বেরিয়ে গেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। আজ মঙ্গলবার বেলা ১টা ৫০ মিনিটে ইসির সঙ্গে বৈঠকের এক পর্যায়ে সেখান থেকে বের হয়ে যান তার।

বৈঠক থেকে বেরিয়ে এসে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা বৈঠক থেকে ওয়াকআউট করেছি। আমাদের কাছে নির্বাচন কমিশনের আচরণ পক্ষপাতিত্ব ও অভদ্র মনে হয়েছে।’

বৈঠক বর্জনের বিষয়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন সিইসিকে বলেন, সিইসি বর্তমানে প্রধান বিচারপতির চেয়েও শক্তিশালী ভূমিকা পালন করতে পারেন। আপনি ইচ্ছা করলে ‘লাঠিয়াল পুলিশ বাহিনী’ নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। পুলিশ অনেকটা ‘লাঠিয়াল’ বাহিনীর মতো আমাদের মিটিং-মিছিল কিছুই করতে দিচ্ছে না। এমনকি বেলা ২টার পর মাইক ব্যবহারের জন্য আমাদের নির্দেশনা দিয়েছে। কিন্তু আওয়ামী লীগ ও তাদের জোটের লোকজন নিয়ম-কানুন না মেনে পুলিশের সহায়তায় প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। ড. কামাল হোসেনের এ বক্তব্যের পর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখান সিইসি। এ সময় তিনি পুলিশের পক্ষেই সাফাই গাইতে থাকেন।

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী আরও বলেন, ‘বৈঠকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান সিইসির উদ্দেশে বলেন, আমার বয়স হয়েছে। তিনবার আমার ওপর আক্রমণ হয়েছে। আমার কর্মীরা মানবঢাল হয়ে আমাকে রক্ষা করেছে। আমি মারা গেলে কিছু না, কিন্তু আমার কর্মীদের তো রক্ষা করতে হবে। আপনি পারলে ব্যবস্থা নেন। না হলে বলে দেন আমি প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াই।’

এর আগে দুপুর ১২টার দিকে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল ইসির সঙ্গে বৈঠক করার জন্য রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে যান। বৈঠকে নির্বাচন কমিশনের পক্ষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম, মাহবুব তালুকদার ও ইসি সচিব হেলালুদ্দিন আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

মতামত দিন

0 Comments

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password

Register