জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়ার আদলেই রাউজানে গড়ে উঠছে বহুল প্রত্যাশিত তাহেরীয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা

এম বেলাল উদ্দিন, রাউজান ঃ-
রাউজানের নোয়াপাড়ায় তাহেরীয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসার ভিত্তি প্রস্তর নির্মাণ করার পর দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে এটির নির্মাণ কাজ। এলাকার মানুষের বহুল প্রত্যাশিত এ মাদ্রাসাটির গত ডিসেম্বর মাসের ১৭ তারিখ ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন আওলাদে রাসুল গাউছে জামান আল¬ামা তাহের শাহ (মা.জি.আ.)। এর পর থেকে এলাকার সর্ব স্তরের মানুষের সহযোগীতায় এগিয়ে চলছে মাদ্রাসাটির নির্মাণ কাজ। প্রতিটা শ্রেণী পেশার মানুষ এ মাদ্রাসা নির্মাণে অকাতরে সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে এগিয়ে আসছে। অনেকের ধারণা চট্টগ্রামের এশিয়া বিখ্যাত জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়ার পর নোয়াপাড়ার এই তাহেরীয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠা পাবে। তাই জামেয়ার আদলেই করা হয়েছে মাদ্রাসার ভবন নকশাসহ সবকিছু। এটি পরিচালিত হবে দেশের বৃহত্তম বেসরকারী ধমীর্য় অরাজনৈতিক সংস্থা আনজুমানে রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাষ্টের সরাসরি তত্তবধানে। নোয়াপাড়া পথেরহাটের প্রবীণ ব্যবসায়ী আলহাজ আবু বক্কর সওদাগর মাদ্রাসা নির্মাণ সর্ম্পকে বলেন এই এলাকায় ভালো মানের লেখা পড়ার একটি সুন্নি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দাড় করানোর জন্য দীর্ঘদিন থেকে চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছিলাম। গত ডিসেম্বর মাসে হুজুর কিবলার নুরানী হাতে সেই মাদ্রাসার ভিত্তির যখন হয়েছে ইনশাল¬াহ আমাদের সেই লক্ষে পুরণ আর বেশিদিন সময় লাগবে না।
দক্ষিণ রাউজান গাউছিয়া কমিটির সভাপতি আহমেদ সৈয়দ মাদ্রাসা নির্মাণ প্রসঙ্গে বলেন, রাউজানের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ঘুরে দেখেছি মাদ্রাসা নির্মাণের একটি জায়গা নির্ধারণের জন্য। অবশেষে হুজুর কিবলার নজরে করমে নোয়াপাড়ার জায়গাটি আমরা ভুমি দাতা জাহেদুল ইসলাম ও বাবুল মিয়া মেম্বারের সহযোগীতায় পেয়েছি। চেষ্টা করছি এই মাদ্রাসাটি জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়ার আদলে গড়ে তোলার জন্য। স্থানীয়ভাবে যথেষ্ট সহযোগীতা আমরা ভাইদের কাছ থেকে পাচ্ছি। আশা করছি এই এলাকায় মাদ্রাসাটি যুগোপযোগী ধর্মীয় জ্ঞানের আলো ছড়াতে কান্ডারী হিসেবে কাজ করবে। সাধারণ সম্পাদক হানিফ বলেন, এই মাদ্রাসাটি রাউজানের শ্রেষ্ট মাদ্রাসা হিসেবে আমরা হুজুর কিবলার মেহেরবানীতে গড়ে তোলব ইনশাল¬াহ। এটি একটি যুগযোপযোগী ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে এ অঞ্চলের ধর্মীয় মানুষের মাঝে জ্ঞানের আলো ছড়াতে অগ্রণি ভুমিকা রাখবে। নোয়াপাড়া ইউনিয়ন গাউছিয়া কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. কামাল উদ্দিন বলেন, এ মাদ্রাসাটির ভিত্তি প্রস্তর দেয়ার মাহফিলের দিন থেকে বিভিন্ন কারামত প্রকাশ হতে দেখা গেছে। এখানে গত ১৭ ডিসেম্বর হুজুর কিবলার আগমন ও মাদ্রাসাটির ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে আয়োজিত মাহফিলের আগের দিন রাতে শত শত মানুষ প্যান্ডেলের উপরে মদিনা শরীফের সবুজ গম্বুজ দেখতে পান। এর পরেও আরো অনেক কারামত ইতিমধ্যে এ মাদ্রাসার প্রকাশ পেয়েছে। যা আমরা প্রকাশ করছিনা। কারন হুজুর কিবলার প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের অহরহ কারামত লক্ষ্য করা যায়। কোন মানুষ নিয়ত করলেই তার ফল পেয়ে যান। উলে¬খ্য এ মাদ্রাসা নির্মাণের জন্য স্থানীয় সাংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি ১৫ লক্ষ টাকা সরকারী বরাদ্ধ দেন। সংযুক্ত আরব আমিরাত গাউছিয়া কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব আইয়ুব ২০ টন রড, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জানে আলম ৫ টন রড অনুদান দেন। গত ২৮ জানুয়ারী শনিবার মাদ্রাসাটির বেইজ ঢালায় কাজ শুরু করা হয়েছে। এখানে চার তলা বিশিষ্ট দুটি ভবন একসাথে গড়ে উঠবে।

Print Friendly, PDF & Email
 

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

%d bloggers like this: