চট্টগ্রামে ৮ দিনব্যাপী বইমেলা ও চিত্রপ্রদর্শনীর উদ্বোধন করলেন ড. হোসেন জিল্লুর রহমান

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ও অর্থনীতিবিদ ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, প্রত্যেকটি দেশের স্বাধীনতার আকাঙ্খা হচ্ছে মানবজাতির উন্নতি সাধন। আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি, তার মধ্যে অনেক আশা আকাঙ্খা ছিল। তৎমধ্যে অন্যতম দেশ জাতির উন্নতি সাধন। জাতির উন্নতিতে জ্ঞানের গুরুত্ব অপরিসীম। তাই অবশ্যই জ্ঞান অর্জন করতে হবে। জ্ঞান অর্জনের প্রধান মাধ্যম বই। সার্বিক অর্থে জ্ঞান অর্জন মানেই নৈতিকতার উৎকর্ষ সাধন। তিনি বলেন, জ্ঞানের বার্তা সর্বস্তরের মাঝে ছড়িয়ে দিতে বই মেলা আয়োজন করায় আনজুমানে খোদ্দামুল মুসলেমীনকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমি নতুন প্রজন্মকে অনুরোধ করব বেশি বেশি বই পড়ার জন্য। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আনজুমানে খোদ্দামুল মুসলেমীন ট্রাস্টের উদ্যোগে পবিত্র ঈদে-মিলাদুন্নবী (দ.) ও মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে ১০ ডিসেম্বর শনিবার বিকালে মুসলিম হল প্রাঙ্গণে ৮ দিনব্যাপী বইমেলা ও চিত্রপ্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. হোসেন জিল্লুর রহমান এ সব কথা বলেন। ট্রাষ্ট্রি বোর্ডের চেয়ারম্যান সাহাবুদ্দীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রথম দিনের বই মেলার আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন ড. কামাল উদ্দিন আজহারী। তিনি বলেন, ইসলাম ধর্মের মহাগ্রন্থ আল কোরআনে আল্লাহ তা’আলা জ্ঞান অর্জনের গুরুত্বারোপ করে নির্দেশ দিয়েছেন, “পড় তোমার প্রতি পালকের নামে”। এভাবে ইসলাম ধর্মের সাথে সাথে প্রতিটি ধর্মে ও সভ্য সমাজে জ্ঞান অর্জনের গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। তিনি বলেন, বিশ্বনবী (দ.) এর আগমনের মাস পবিত্র রবিউল আউয়াল ও মহান মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে বই মেলার আয়োজন সত্যি প্রশংসনীয়। আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন মেলা প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব স উ ম আব্দুচ সামাদ। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য এম এ মতিন, চিটাগাং চেম্বার অব কমার্সের সাবেক পরিচালক মুহাম্মদ আলমগীর পারভেজ, সাংবাদিক স ম ইব্রাহিম, অধ্যক্ষ আবু তালেব বেলাল, অধ্যক্ষ বদিউল আলম রেজভী, অধ্যক্ষ হারুনুর রশিদ, সংগঠক ছাদেকুর রহমান খান। আর টিভি সাংবাদিক ইয়াছিন রানা সোহেলের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন নুরুল ইসলাম জিহাদী, নাঈমুল ইসলাম পুতুল, নাছির উদ্দিন মাহমুদ, ইকবাল হোসেন আলকাদেরী, মাস্টার আবুল হোসাইন, এনামুল হক ছিদ্দিকী, আবু তৈয়ব চৌধুরী, মাওলানা আশরাফ হোসেন, সৈয়দ মুহাম্মদ আবু আজম, মুহাম্মদ আলগীর হোসেন, জিএম শাহাদত হোসাইন মানিক, এইচ.এম. শহিদুল্লাহ, নুরুল্লাহ রায়হান খান, ইসতিয়াক রেজা, শাহাজাদা নিজামুল করিম সুজন, সৈয়দ মুহাম্মদ খোবাইব, মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম, সরওয়ার উদ্দিন চৌধুরী, রিয়াজ হোসাইন, আব্দুল কাদের রুবেল, মুহাম্মদ সাহাবুদ্দীন প্রমুখ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে অতিথিবৃন্দ ইসলামের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও মহান মুক্তিযুদ্ধের দুর্লভ চিত্র প্রদর্শনী ও বই মেলার বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন। মেলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশনায় ছিলেন মাছুমুর রশিদ কাদেরী, রেজাউল মোস্তফা কায়সার, মিফতাহুল ইসলাম, হানিফ মান্নান, রাকিবুল ইসলাম, আসরার তানজিম প্রমুখ। আগামীকাল ১১ ডিসেম্বর বইমেলার দ্বিতীয় দিবসে প্রধান অতিথি থাকবেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র আলহাজ্ব মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী। প্রধান আলোচক থাকবেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ড. শাহ আব্দুল্লাহ আল মারূফ, বিশেষ আলোচক থাকবেন সাদার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. জালাল উদ্দিন আল আজহারী। সভাপতিত্ব করবেন ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য ও দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশের সহ-সম্পাদক স ম ইব্রাহিম। মেলায় সর্বস্তরের জনতাকে উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন মেলা প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব স উ ম আব্দুস সামাদ।

উল্লেখ্য- মেলার সহযোগিতায় রয়েছেন পিএইচপি ফ্যামিলি, আঞ্জুমানে রাহ্মাতুল্লিল আলামিন ট্রাস্ট, রাহ্মাতুল্লিল আলামিন হজ্ব কাফেলা ও মিডিয়া পার্টনার বিজয় টিভি, দৈনিক আজাদী, দৈনিক পূর্বদেশ ও এস.এন.এন ২৪ ডট কম। প্রতিদিন মেলার মূল অনুষ্ঠান দুপুর ২.৩০মি: থেকে শুরু হয়ে ২টি অধিবেশনে রাত ৮.০০টা পর্যন্ত চলবে। প্রথম অধিবেশন বিকাল ২.৩০ মিনিট থেকে বিকাল ৩.৫০মিনিট এবং দ্বিতীয় অধিবেশন বিকাল ৪.১৫ মিনিট থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে। বুক স্টল দুপুর ১২ থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। কর্মসূচির মধ্যে থাকছে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত, হামদ, নাতে রাসূল (দ:) পরিবেশন, রাসূল (দ:)’র শানে নিবেদিত কবিতা পাঠের আসর, দেশাত্মবোধক সংগীত পরিবেশন, নতুন বইয়ের প্রকাশনা উৎসব, মোড়ক উন্মোচন, পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ:) ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সম্পর্কিত আলোচনা সভা, মহান মুক্তিযুদ্ধ ও ইসলামের ইতিহাস-ঐতিহ্যের দুর্লভ চিত্র প্রদর্শনী।

0 Comments

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password

Register