breaking news New

চট্টগ্রামে মা কালী মিষ্টি ভান্ডার বন্ধ, ৫ লক্ষ চাঁদা দাবী, আইন ও হিন্দুত্ববাদী সংঘটনরা নীরব

রাজিব শর্মা, চট্টগ্রাম: পাঁচ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেওয়ার দক্ষিণ চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার বরমায় বিখ্যাত মা কালি মিষ্টি ভান্ডার বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় এক প্রভাবশালী চক্রের সদস্যরা।

চন্দনাইশ উপজেলায় বরমা ইউনিয়ন কালিহাট এলেকায় বহু প্রাচীন ও সুপরিচিত, মা কালি মিষ্টি ভান্ডার যা অনেকের কাছে “হরি কাকার মিষ্টি” নামেও পরিচিত, কিন্তুবেশ কিছুদিন আগে হঠাৎ কিছু চিহ্নিত সন্ত্রাসী, নাজিম লোকমান, সৌরভ সহ এই বাহিনী দোকানের মালিক হরিপদ দে এর কাছে ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছিল, এবং হুমকি দেওয়া হয়েছিল বলে জানান।

এই ব্যাপারে উক্ত দোকানের মালিক বলেন, তারা দীর্ঘদিন ধরে চাঁদা দাবী করে আসছিল, যা দিতে না পারায় তারা দোকান বন্ধ করে দেন। তিনি আরও বলেন, সন্ত্রাসীরা হুমকি দেন, ‘এই দেশে ডেন্ডারা চাঁদা না দিয়ে ব্যবসা করতে পারে না, তারই পরিপ্রেক্ষিতে তারা গত কিছুদিন আগে দোকানে চাঁদার টাকায় নিতে আসছে। এই সময় মালিক বয়স্ক হরিপদ দে ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা দিতে না পারলে তারা থাকে মেরে দোকান থেকে বের করে দিয়ে দোকান বন্ধ করে দেই যা এখনো বন্ধ রয়েছে, শুধু তাই নয় হুমকি দেওয়া হচ্ছে পুলিশ কে জানানো হলে পুরো পরিবার কে ঘরে বন্ধ করে আগুন দিয়ে পুরিয়ে দেওয়া হবে, বর্তমান আইনের দরজায় দরজায় ঘুরলেও উক্ত দোকানের মালিক হরিপদ দে আইনের কোন সাহায্য সহযোগিতা পাচ্ছেন না। তার পরিবারে আগুন দেওয়ার হুমকির ভয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

হরিপদ দে কে আইনের কাছে যাওয়া নিয়ে প্রশ্ন করা হলে, থানায় গিয়েছেন, অভিযোগ বা মামলা নেয়নি। এমনকি স্থানীয় হিন্দুত্ববাদী সংঘঠণগুলোকে জানানো হলেও সংগঠণগুলো নীরব ভূমিকা পালন করছেন।

নাম প্রকাশ্যে অনিশ্চুক এক হিন্দু বলেন, হিন্দু নেতারা নেতা হয় পদের আশায়, হিন্দুদের অসহায়ের সুযোগ ব্যবহার করেন। কিছু সংঘঠণের কাছে গেলে তারা অর্থ ছাড়া কিছুই বুঝেনা। তাহলে এসব হিন্দুত্ববাদী সংঘঠন করে লাভ কি শুধু পকেটে টাকা ডুকানোর জন্য, প্রশাসনের কাছে জানতে চাই, যে হিন্দু সংঘঠন হিন্দুদের বিপদে না দাড়িয়ে উল্টা চাঁদাবাজিতে লিপ্ত এসব সংঘঠন বন্ধ করা হোক না হয় তাদের এসব নোংরামির কারণে অচিরেই হিন্দুরা আরো অসহায় ও দেশত্যাগে বাধ্য হবেন।

বর্তমান হরিপদ দদে এর পরিবার আইন, হিন্দুত্ববাদী সংগঠণদের পাশে না পাওয়ার কারণে তারা দেশ ত্যাগ করা চিন্তা করছে, এবং এলাকার অনেকেই জানিয়েছেন, উক্ত ইউনিয়নে তিন তিনবার নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের নীরবতা ভূমিকা দেখে এলাকার অন্যরা ও আজ আতংকিতবোধ করছেন। এমন অবস্থায় সকলে আইনি সফল প্রক্রিয়া আশা করছে

মতামত দিন

0 Comments

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password

Register