গণতন্ত্রহীনতার কারণেই দেশে আইএস’র উত্থান হচ্ছে

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: বিএনপির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এবং সাবেক হুইপ সৈয়দ ওয়াহিদুল আলম বলেছেন, ‘দেশের গণতন্ত্র আজ গণভবনের চার চেয়ারলে আবদ্ধ। শেখ হাসিনা তার দলীয় ও রাষ্ট্রীয় বাহিনী দিয়ে দেশকে লুটপাট করে খাচ্ছে। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের বহুদলীয় গণতন্ত্র আজ রুদ্ধ। আর গণতন্ত্র হীনতার কারণেই দেশে উগ্রবাদি ও জঙ্গিবাদের উত্থান হচ্ছে। এজন্য আওয়ামী লীগই দায়ি। শেখ হাসিনা ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করতে গিয়ে মানুষের ভোটাধিকার, বাকস্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও মৌলিক অধিকার হরণ করে দেশকে এক প্রকার একনায়কতন্ত্রে পরিণত করেছে। জননিরাপত্তা দিতে সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। তাই খবরের কাগজ খূললেই দেখা যায় খুন ও ঘুমের খবর। আর বিএনপিকে দমানোর জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে মামলা।’
সৈয়দ ওয়াহিদ বলেন, ‘সরকার বিএনপিকে চাপে রাখার জন্য দেশের বিভিন্ন স্থানে ও ধর্মের মানুষকে গুপ্ত হত্যা ও খুন করছে। এটি আওয়ামী লীগের নতুন কোন অপকৌশল। কারণ আওয়ামী লীগের পক্ষে জনগণের কোন আস্থা নেই। তাই তারা গণতন্ত্রকে খুন করে বিনাভোটের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে আছে। কিন্তু স্বৈরাচারী ও একনায়কতন্ত্র দীর্ঘস্থায়ী হয় না। জনগণ তাদের ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনতে রাজপথে নামবে। শীঘ্রই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে এ সরকারের পতন নিশ্চিত করা হবে।’
শনিবার (৯ জুলাই) দুপুরে হাটহাজারীর লালিয়ারহাটস্থ নিজ বাড়িতে ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন। ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামের রাজনীতিবিদ, পেশাজীবি, সাংবাদিক, দলীয় নেতাকর্মী ও সমাজের বিভিন্ন স্তরের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। আগত অতিথিদের তিনি নিজ হাতে আপ্যায়ন করেনসাবেক চারবারের সংসদ সদস্য সৈয়দ ওয়াহিদুল আলম। চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী গরুর মাংসের মেজবান ও বিভিন্ন প্রকারের খাবার দিয়ে অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয়। নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের জনগণের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে সাবেক হুইপের বাড়ি। অনুষ্ঠানের মধ্যমনি ছিলেন সদ্যকারামুক্ত উত্তর জেলা বিএনপির সদস্য ও সৈয়দ ওয়াহিদুল আলমের মেয়ে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা। বাবার সাথে তিনি বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আগত নেতাকর্মীদের সাখে খুশল বিনিময় করেন এবং তাদেরকে আপ্যায়ন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি আলহাজ্ব সালাউদ্দিন, পেশাজীবী নেতা ডা.খুরশিদ জামিল, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নুরুল আমিন, নুর মোহাম্মদ, সেকান্দর চৌধুরী, এড আবু তাহের, আবদুল আওয়াল, সাবেক সদর ইউপি চেয়ারম্যান আলী আজম, মো.সেলিম চেয়ারম্যান, এড ফোরকান আহমেদ চেয়ারম্যান, মুজিবুল হক চেয়ারম্যান, মঞ্জুর হোসেন চৌধুরী মাসুদ চেয়ারম্যান, আবুল হোসেন চেয়ারম্যান,রাঙ্গুনীয়া বিএনপি নেতা নওয়াব মিয়া চেয়ারম্যান, মাহবুব ছাফা কন্ট্রাক্টর, আইয়ূব খান,,সৈয়দ নাছির উদ্দিন,এস এম ফারুক, আলী আকবর চেয়ারম্যান,হাটহাজারী পৌর বিএনপির আহ্বায়ক জাকির হোসেন, রহমত উল্লাহ মেম্বার, নুরুল বশর,এইচ এম জসীম উদ্দিন জিকো, আবুল মাস্টার, হাটহাজারী যুবদলের সভাপতি শাহেদুল আজম শাহেদ, উত্তর জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুর রহমান, আবদুল মান্নান দৌলত, গাজী মহসিন,জাহেদ আলী, ইয়াহিয়া জিয়া, মো.শাহেদ, সাইফুদ্দিন রাশেদ, সরোয়ার রাশেদ প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email
 

0 Comments

Leave a Reply

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

%d bloggers like this: