breaking news New

খারাপ ছেলেদের প্রেমে বেশি পড়েন মেয়েরা, কেন জানেন তো!

বিনোদন ডেস্কঃ যুগে যুগে একটা প্রশ্নই মানুষের মনে আনাগোনা করেছে। মেয়েরা কেন দুষ্টু ছেলেদের প্রেমে পড়ে? এর ব্যাখ্যাও এসেছে বহু দিক থেকে। ভরসা করা যায় না, প্রতিশ্রুতিশীল নয়, নির্ভর করতে ভয় হয়।
তবুর এ সকল দুষ্টু ও বিদ্রোহী টাইপের ছেলেদের রহস্যের ইন্দ্রজালে মোহিত হয়ে পড়ে মেয়েরা। সাইকোলজি টুডে-এর এক প্রতিবেদনে এ সম্পর্কে বর্ণনা করেছেন ওয়াশিংটনের একটি ক্লিনিকের মনোবিজ্ঞানী ও সম্পর্কবিষয়ক বিশেষজ্ঞ ড. বিনিতা মেহতা।
বিশেষজ্ঞদের বহু কালের অভিজ্ঞতা বলছে, এমন ছেলেদের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে মেয়েদের কেবল অশ্রুসজল চোখ আর হতাশায় ডুবে যাওয়া মন ছাড়া আর কিছুই মেলেনি।
কিন্তু এসব অভিজ্ঞতার পরও তারা ওই ছেলেটির প্রতি আগের মতোই আকৃষ্ট থাকে।
মেয়েদের এমন প্রেমকে পাগলাটে, অন্ধ ও নির্বোধের ভালোবাসা ছাড়া আর কিছুই বলা যায় না। অথচ তা সত্যিকার ভালোবাসা।
ড. বিনিতা জানান, সুবোধ বালকের মধ্যে কোনো রহস্যময়তার টান নেই। মেয়েরা দুষ্টু ছেলেদের এলোমেলো স্বভাব ও জীবনের নানা অজানা-অচেনা বিষয়ের প্রতি তীব্রভাবে আকর্ষিত হয়।
উত্তেজনা, উদ্দীপনা, নিষিদ্ধের স্বাদ সবই যেন লুকিয়ে রয়েছে ‘ব্যাড বয়’দের জীবনে। এমনকি কম বয়সী একটা মেয়ের মধ্যেও এসব ছেলের প্রতি আকর্ষণ জন্মায়।
সম্প্রতি এক জরিপে বলা হয়েছে, যে সকল পুরুষরা কঠিন ও এলোমেলো জীবনযাপন করেন, তারাই নারীদের চোখে ‘ব্যাড বয়’। প্রচলিত নিয়মের বিরুদ্ধে যাওয়া, একঘেয়েমি থেকে দূরে থাকা, গতানুগতিক নয় এবং অদ্ভুত কথোপকথন ইত্যাদি বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন ছেলেদের প্রেমে মেয়েরা পাগল হয়ে যায়। যদিও এমন ছেলের সঙ্গে ভবিষ্যতটা যে আলোকিত নয়, তা দিব্যি বোঝে মেয়েরা। কিন্তু তাদের সঙ্গ পাওয়ার কাছে এটা যেন কিছুই নয়।
আবার দুষ্টু ছেলেদের যারা জীবনসঙ্গিনী হয়েছেন, তাদের লক্ষ্য থাকে স্বামীকে সুবোধ মানুষে পরিণত করা। এটাই বিয়ের পর নারীর জীবনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ায়। তবে জীবনের নানা অংশে, এমনকি বিছানাতেও তারা দুষ্টু বালকের আকর্ষণকে এড়াতে পারেন না।
এ ছাড়া এমন পুরুষের প্রেমে মেয়েদের পাগল করতে সমাজের কিছু বিষয় ভূমিকা রাখে। সিনেমা, নাটক বা প্রচলিত গল্পের মাধ্যমে তা মনের মধ্যে প্রোথিত হয়। এই ছেলেরা যেকোনো ধরনের মেয়ের মনে সারা জীবনের স্বপ্নের পুরুষ হয়ে থাকে।
অনিতা জানান, মেয়েদের কাছে এমন ছেলেদের জনপ্রিয়তা অনেক মেয়ের কাছেই হয়তো স্থায়িত্ব পায় না। কিন্তু তা সারা জীবনের জন্যে হারিয়েও যায় না।

মতামত দিন

0 Comments

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password

Register