অবিলম্বে ছাত্র সংসদ নির্বাচন দিতে হবে: জাবিতে লাকি আক্তার

আদ্রিয়ান অরিত্র, জাবি প্রতিনিধি:
ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি লাকি আক্তার বলেন, ‘আজ শিক্ষাঙ্গনে
ছাত্র নেতৃত্ব তৈরি হচ্ছে না। কারণ তথাকথিত গণতান্ত্রিক সরকার গণতন্ত্রের
টুটি চেপে ধরেছে। ছাত্র আন্দোলনে স্বৈরাচারী এরশাদ সরকার ঠিকই পতন
হয়েছিলো, কিন্তু ছাত্রদের দাবিগুলো এখনো বাস্তবায়ন হয়নি। অবিলম্বে
ঢাকসু-জাকসু সহ সারা দেশের ছাত্র সংসদ নির্বাচন দিতে হবে। হলে হলে
দখলদারিত্ব বন্ধ করতে হবে। বিভিন্ন জায়গায় আত্মঘাতী হামলা হচ্ছে, আজকে
কেন এই পরিস্থিতি তৈরি হবে? শিক্ষার যথাযথ মান না পাওয়ার কারনে এ
পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে।’

সোমবার (২০ মার্চ) দুই দিনব্যাপী বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জাহাঙ্গীরনগর
বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) সংসদের ২৭তম সম্মেলনে অতিথি বক্তব্যে এসব কথা বলেন
তিনি।

এসময় তিনি আরো বলেন, ‘সত্যিকার অর্থেই দেশ ডিজিটাল হচ্ছে, দেখতে পাই
পরীক্ষার আগের রাতে প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়। হেকেপের মতো প্রজেক্টের মাধ্যমে
মেধাস্বত্ব কিনে নেওয়ার প্রক্রিয়া ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে
আমাদের গবেষণা খাত সাম্রাজ্যবাদীরা নিয়ন্ত্রণ করছে। সুতরাং আজকে আমরা
শিক্ষার মান নিয়ে কথা বলতে হবে। বাষট্টির ন্যায় শিক্ষা আন্দোলন গড়ে তুলতে
হবে।’

‘রুখে দাও প্রাণ-প্রকৃতি ও শিক্ষার বিনাশ, আমাদের সম্মিলিত হাতে হোক
মুক্তির চাষ’ এ শ্লোগানকে ধারন করে দুই দিনব্যাপী এ সম্মেলনের উদ্বোধন
করেন ৬২’র শিক্ষা আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক ও বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ হায়দার
আকবর খান রনো।

এসময় তিনি বলেন, “স্বাধীনতার পর থেকে প্রায় চার দশক পার হয়ে গেছে, এসময়
অনেক পরিবর্তন হয়েছে সত্য, কিন্তু মৌলিক কোন পরিবর্তন হয়নি। আমরা
বলেছিলাম, শিক্ষা কেবলমাত্র সুযোগদান নয়, এটা অধিকার। এখন আমরা তিনটি বড়
ধরনের শিক্ষা ব্যবস্থা দেখতে পাই- সাধারণ, ইংরেজি, মাদ্রাসা। ইংরেজি
মাধ্যমের শিক্ষা দ্বারা কি শিক্ষা লাভ করা হচ্ছে তা আমার জানা নেই। একজন
ইংরেজি কবির নাম জানলেও জসিমউদ্দীনের নাম তারা জানেনা।

তিনি আরো বলেন, যারা বড় বড় দল- ছাত্রলীগ ছাত্রদল ইত্যাদি এদের পেছনে আমি
মনে করি না সত্যিকারের ছাত্রদের কোন সমর্থন আছে। দেখা যায় যখন যে দল
ক্ষমতায় থাকে তার অঙ্গ সংগঠন হিসেবে ছাত্র সংগঠনটি দাপটে রাজত্ব করে যায়,
তারপরে ভ্যানিশ। ছাত্র ইউনিয়ন একটি ভিন্নধর্মী দল- যার প্রেরণা আছে,
আদর্শ আছে। আদর্শের বলে বলিয়ান এই ছাত্র ইউনিয়ন এগিয়ে যাবে, শিক্ষার
দাবিকে বলিয়ান করবে।”

পরে একটি র্যা লি বের করা হয়। র্যা লিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অমর একুশের
পাদদেশ থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক পদক্ষিণ করে
আবার আমার একুশের পাদদেশে এসে শেষ হয়।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সভাপতি দীপাঞ্জন
সিদ্ধান্ত কাজল, সহ-সভাপতি ইমরান নাদিম, সাধারন সম্পাদক আবিদ সরকার সোহাগ
প্রমুখ।

এদিকে সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন আগামীকাল ২১ মার্চ আলোচনা সভা ও নাটক
অনুষ্ঠিত হবে। আলোচনা সভায় আলোচক হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ভাষা সংগ্রামী ও
সাংষ্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব কামল লোহানী, জাবি দর্শন বিভাগের অধ্যাপক
আনোয়ারুল্লাহ ভুঁইয়া, সাবেক ছাত্র ইউনিয়ন সভাপতি লুনা নুর ও সাধারন
সম্পাদক জিলানী শুভ।

ওইদিন সন্ধা ৬টায় ‘বাতিঘরের’ প্রযোজনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সেলিম আল দীন
মুক্তমঞ্চে নাটক ‘উর্ণাজাল’ প্রদর্শিত হবে। এর মাধ্যমে দুইদিনব্যাপী এ
সম্মেলন শেষ হবে।

মতামত দিন

0 Comments

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Don't have account. Register

Lost Password

Register